ক্লিওপেট্রা!

তৎকালীন মিশরের ইতিহাস খ্যাত টলেমি বংশের ছেলে সন্তানদের নামের শেষে ‘টলেমি’ এবং কন্যা সন্তানদের নামের শেষে ‘ক্লিওপেট্রা’ নামটি জুড়ে দেয়া হত। ইতিহাস বিখ্যাত যে ক্লিওপেট্রার নাম আমরা শুনেছি তিনি হলেন মিশর শাসনকারী টলেমি বংশের শেষ শাসক সপ্তম ক্লিওপেট্রা। দ্বাদশ টলেমির কন্যা ক্লিওপেট্রা ছিলেন খুব বুদ্ধিমতী, শিক্ষিতা এবং শিথিল নৈতিকতাসম্পন্ন নারী। তার জন্ম খ্রিষ্টপূর্ব ৬৯ সালে এবং মৃত্যু খ্রিষ্টপূর্ব ৩০ সালে।

মিশরীয় নিয়ম অনুযায়ী অষ্টাদশী ক্লিওপেট্রা তার ছোট ভাই ১০ বছর বয়সী ত্রয়োদশ টলেমিকে বিয়ে করে মিশরের রানী হন। কিন্তু তাদের দু’জনের মাঝে বিরোধ বিদ্যমান ছিল। খ্রিষ্টপূর্ব ৪৭ সালে রোমের সেনাপতি জুলিয়াস সিজার মিশরে আসলে এই বিরোধের নিষ্পত্তি ঘটে এবং সিজারের সাথে যুদ্ধে ত্রয়োদশ টলেমি মারা যান। ক্লিওপেট্রা পরিণত হন সিজারের প্রণয়িনীতে এবং সিজারের সাথে তিনি চলে যান রোমে। অবশ্য এ সময়ে তিনি নামে মাত্র বিয়ে করেছিলেন তার আরেক ছোট ভাই চতুর্দশ টলেমিকে।

জার্মানির বার্লিনের আলটাস মিউজিয়ামে সংরক্ষিত সপ্তম ক্লিওপেট্রার প্রতিকৃতি

খ্রিষ্টপূর্ব ৪৪ সালে জুলিয়াস সিজার নিহত হলে ক্লিওপেট্রা মিশরে ফিরে আসেন। চতুর্দশ টলেমি মারা যাওয়ার পর ক্লিওপেট্রা তার সন্তান পঞ্চদশ টলেমির সঙ্গে মিশর শাসন করতে থাকেন। পঞ্চদশ টলেমি হচ্ছেন জুলিয়াস সিজারের ঔরসজাত সন্তান, তিনি ‘সিজারিয়ন’ হিসেবে ইতিহাসে পরিচিত।

এর ৩ বছর পর জুলিয়াস সিজারের বন্ধু ও সেনাপতি মার্ক এন্টনি মিশরে ক্লিওপেট্রাকে আক্রমণ করতে আসেন কিন্তু তিনি ক্লিওপেট্রার প্রেমে পড়ে যান। তাদের ২ জন যমজ সন্তান হয় (১জন ছেলে সন্তান ও ১জন মেয়ে সন্তান), এদের একজন আলেকজান্ডার হেলিয়স এবং অন্যজন ক্লিওপেট্রা সেলেনি। মিশরের সিংহাসন লাভের জন্য মার্ক এন্টনি খ্রিষ্টপূর্ব ৩৬ সালে ক্লিওপেট্রাকে বিয়ে করেন। কিন্তু এন্টনি আগে থেকে বিবাহিত ছিলেন এবং তার স্ত্রী ছিলেন জুলিয়াস সিজারের উত্তরাধিকারী অক্টাভিয়াসের বোন। অক্টাভিয়াস এই ঘটনার প্রতিশোধ নিতে আক্রমণ চালিয়ে ক্লিওপেট্রার নৌবহর ধ্বংস করে দেন। এরফলে অক্টাভিয়াস মিশরের কর্তৃত্ব লাভ করেন। মিশরের কর্তৃত্ব লাভ করে নতুন শাসক হওয়ার পর অক্টাভিয়াস ক্লিওপেট্রাকে বিয়ে করতে চাইলে ক্লিওপেট্রা আত্মহত্যার পথ বেছে নেন। এদিকে অক্টাভিয়াসের হাতে নিহত হন জুলিয়াস সিজারের ঔরসজাত সন্তান সিজারিয়ন এবং মার্ক এন্টনির ঔরসজাত সন্তান আলেকজান্ডার হেলিয়স। অন্যদিকে সেলেনি বিয়ে করেন নিউমিডিয়ার রাজাকে। তাদের ছেলে সর্বশেষ টলেমি অর্থাৎ টলেমি বংশের শেষ পুরুষ নিহত হন ক্যালিগুলার হাতে। এভাবে পরিসমাপ্তি ঘটে ইতিহাস বিখ্যাত ক্লিওপেট্রা অধ্যায়ের। বর্তমান মিশরের আলেকজান্দ্রিয়ায় তার সমাধি অবস্থিত।

Advertisements

About চাটিকিয়াং রুমান

সবসময় সাধারণ থাকতে ভালোবাসি। পছন্দ করি লেখালেখি করতে, আনন্দ পাই ডাক টিকেট সংগ্রহ করতে আর ফটোগ্রাফিতে, গান গাইতেও ভালবাসি। স্বপ্ন আছে বিশ্ব ভ্রমণ করার...।।

Posted on জুন 11, 2012, in ইতিহাস and tagged , , . Bookmark the permalink. 39 টি মন্তব্য.

  1. আমি ১৯৯৫ সালে মিশর গিয়েছিলাম। আপনার পোষ্ট পড়ে তা বার মনে হল! কলেজ লাইফে ‘ক্লিওপেট্রা’ কাহিনী পড়েছিলাম। আমার মনে আছে টানা তিন দিন পড়ে বইটা শেষ করেছিলাম।

  2. খাইসে ! এত্ত প্যাচাইন্না ক্যান ! মাথা গেসেগা ! :-#

  3. প্রথমবার পড়ে কিছুই না বুঝছিলাম না। পরপর দুবার পড়ে এখন যথেষ্ট পরিষ্কার লাগছে। প্যাঁচানো হলেও ধারাবাহিকতা আছে। :)

  4. ক্লিওপেট্রার দীর্ঘ ইতিহাসকে এত সংক্ষিপ্তাকারে নিয়ে আসার লেখুনিকে প্রাণঢালা শুভেচ্ছা :)
    আর ক্লিওপেট্রা সম্পর্কে অনেক কিছু বলতে ইচ্ছে হলেও এইভাবে গুছিয়ে সংক্ষিপ্তসারে শেষ করতে পারবনা বলে চেপে গেলাম :P

  5. সবুজ মোহাইমিনুল

    কাহিনীটি ছোট করে উপস্থাপন করার জন্য ধন্যবাদ ….ভাল লাগল

  6. ক্লিওপেট্রা এমনই একজন যে, তাঁকে নিয়ে লেখা কিছু বারবার পড়তে ক্লান্তি আসেনা কখনও।
    আজ আবারও নতুন করে রিভিউ হলো মাথার ভেতর।

    চমৎকার লাগলো রুমান ভাই। এই ধরনের পোস্ট সত্যিই বেশ কষ্টসাধ্য ব্যাপার।

  7. হা হা হা, এটা কিন্তু সত্যি।
    কিছু নারী চরিত্র আছে, যাতে আপনাতেই মন থেকে একটা রোমান্টিকিজম কাজ করে।
    ভাল থাকুন আপনিও, প্রতিনিয়ত। শুভকামনা রইল প্রিয় রুমান ভাই।

  8. ক্লিওপেট্রা আমারো খুব প্রিয় বিষয়। রুমান, আরেকটু বড় করলে ভালো হতো। আমার মনে হয় কিছু তথ্যগত ভুল আছে। অনেকদিন ধরে ব্লগে লেখা হচ্ছে না। দেখি, ক্লিওপেট্রা কে নিয়েই লেখা যায় কি না।

    • গতকাল আপনার ব্লগে গিয়ে দেখি নতুন কোন লেখা নেই। অনেকদিন ধরে ব্লগে লিখছেন না আপনি।

      লেখাটা আরেকটু বড় করতে চেয়েছিলাম, কিন্তু ইচ্ছে করেই বড় করিনি। কারণ কাহিনীগুলো এমনিতেই প্যাঁচানো। বড় করলে বিরক্তির কারণ হতে পারে পাঠকদের কাছে।

      পোস্টে তথ্যগত ভুল থাকলে দয়া করে দেখিয়ে দিবেন ভাইয়া। আর ক্লিওপেট্রাকে নিয়ে আপনার পোস্ট পড়ার অপেক্ষায় থাকলাম। ভালো থাকুন। :)

      • পেশাগত কাজে চিড়ে চ্যাপ্টা অবস্থা!

        ভুল খুব বেশি না, সামান্য। এই যেমন, এন্টনী আর ক্লিওপেট্রার আরো একটি ছেলে ছিলো। এছাড়া ক্লিওপেট্রা তাঁর বাবার সাথেও মিশর শাসন করেছিলো।

        আমি ইতিহাস ছোট করে লিখতে পারি না, তাতে ভুল বোঝার সম্ভাবনা থাকে।

        ভালো থেকো, রুমান।

        • এন্টনী আর ক্লিওপেট্রার আরো একটি ছেলে ছিলো সেটা জানা ছিলো না আমার। আর ক্লিওপেট্রা তার বাবার সাথেও মিশর শাসন করেছিলো সেটা কেনো যে পোস্টে উল্লেখ করতে ভুলে গেলাম বুঝলাম না!!

          অনেক ধন্যবাদ ভাইয়া, বিষয় দু’টি উল্লেখ করার জন্য। ভালো থাকুন সব সময়।

  9. আপনি আর নিয়াজ ভাই এই ম্যাডামকে নিয়ে……… হা হা হা…

  10. ক্লিওপেট্রা নিয়ে বারবার পড়লেও যেন মনে হয় নতুন করে পড়ছি।
    ভাল লাগল লেখাটি।

  11. ভালো লাগলো, অনেকদিন পর ইতিহাসের উপর প্রাধান্য দেয়া ব্লগ খুঁজে পেলাম, সাবস্ক্রাইব করার লোভ সামলাতে পারলাম নাহ :D

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: